Home / LifeStyle / সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার জন্য সঙ্গীর এই আচরণগুলো কখনোই সহ্য করবেন না

সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার জন্য সঙ্গীর এই আচরণগুলো কখনোই সহ্য করবেন না

অনেকেই আছেন সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার জন্য মুখ বুঝে সঙ্গীর অনেক ধরণের অত্যাচার মুখ বুঝে সহ্য করে নেন। শুধু নারীরাই নন অনেক সময় পুরুষেরাও এই ধরণের অত্যাচারের শিকার হয়ে থাকেন এবং শুধুমাত্র সম্পর্ক রক্ষা ও সমাজ সংসারের কথা ভেবে মুখ বুঝে সহ্য করে যান যা একেবারেই উচিত নয়। কারণ অন্যায় যে করে এবং অন্যায় যে সহ্য করে দুজনেই সমান অপরাধী।

এছাড়াও আপনার সহ্য করা সঙ্গীর মনে সহানুভূতির জন্ম দেবে না বরং তার সাহস আরও বাড়িয়ে তুলবে। তাই সঙ্গীকে যতোই ভালোবাসুন বা সমাজ সংসারকে যতোই ভয় করুন না কেন সঙ্গীর এই আচরণ সহ্য করে তার সাহস বাড়িয়ে তুলবেন না কখনোই।

১/ গায়ে হাত তোলা :
যতো বড় অপরাধই করা হোক না কেন কেউ কারো গায়ে হাত তুলতে পারেন না। বিশেষ করে দুজন মানুষ যখন সম্পর্কে থাকেন তাদের মধ্যে এই কাজটি হওয়া উচিত নয় এবং যদি কখনো এমন হয় তাহলে সাথে সাথে প্রতিবাদ করা উচিত, মুখ বুঝে সহ্য করবেন না একেবারেই। এতে করে সঙ্গী আরও বড় কিছু করার সাহস পেয়ে যাবেন।

২/ মানসিকভাবে অপদস্ত করা :
অনেকেই আবার এমন আছেন যিনি গায়ে হাত তোলেন না কিন্তু মুখের কথাতেই একেবারে ক্ষত-বিক্ষত করে দিতে পারেন। এবং মানসিকভাবে প্রচণ্ড অপদস্ত করে তোলেন সঙ্গীকে। সঙ্গীর এমন আচরণও কখনোই মুখ বুজে সহ্য করবেন না। কারণ তিনি আপনাকে ভালবাসলে তাকে দ্বারা এই কাজটি কখনোই হতো না। সুতরাং সম্পর্কের কথা না ভেবে নিজের কথা ভাবুন।

৩/ অতিরিক্ত অধিকার ফলানো :
সঙ্গীর পায়ে বেড়ী পরানোর মনোভাব যাদের রয়েছে তারা কোনো ভাবেই সঙ্গীকে সুখে রাখতে পারেন না। তারা সঙ্গীকে নিজের সম্পত্তি ভাবা শুরু করে দেন এবং অতিরিক্ত অধিকার ফলিয়ে সব ক্ষেত্রে আটকে ফেলতে চান। সঙ্গীর এমন মনোভাবও গ্রহণযোগ্য নয়। এটাকে সঙ্গীর ভালোবাসা ভেবে ভুল করবেন না একেবারেই।

৪/ প্রত্যেকবার আপনাকে নিচু করে আপনার স্বপ্ন নষ্ট করা :
দুজন মানুষ আলাদা দুজনের স্বপ্নও আলাদা। সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার জন্য দুজনকেই দুজনের স্বপ্নের মূল্য দিতে হবে এবং দুজনেরই উচিত দু-জনকে সম্মান করা। কিন্তু যদি সঙ্গী partner নিজের স্বার্থ রক্ষার জন্য প্রতিবার আপনাকে অসম্মান করে আপনার সকল স্বপ্নকে বিসর্জন দিতে বলতে পারেন এবং আপনাকে দেয়াতে পারেন তাহলে আপনি এই সম্পর্ক ধরে রাখতে পারবেন না একেবারেই। মানুষ স্বপ্ন ছাড়া বেশীদিন বাঁচতে পারেন না। প্রথমদিকে মনে হলেও পরবর্তীতে আপনি নিজেই হাঁপিয়ে যাবেন। তাই প্রথমেই এই জিনিসটি সহ্য না করে প্রতিবাদ করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *